ইঞ্জিনিয়ারদের বিদেশ যাবার আগে করনীয় !

6498 2017-07-09 Career Tools
Naima Yasmin

Naima Yasmin
Contributor

বিদেশে উচ্চ বেতনে চাকরি পাওয়া যায় বলে বাংলাদেশ থেকে প্রতিবছর অনেক ইঞ্জিনিয়ার বিদেশে যাচ্ছেন ।  আমাদের দেশে একজন ২/৩ বছরের অভিজ্ঞ ইঞ্জিনিয়ারের বেতন ১৫ থেকে ২৫ হাজারের মত ,অথচ দেশের বাইরে লাখের উপরে । কিন্তু অনেক ইঞ্জিনিয়ার প্রতিনিয়ত পড়ছে প্রতারনার খপ্পরে। আর তখন ভালো বেতন তো দুরের কথা ঠিক মত কাজ পাওয়াটা কঠিন হয়ে পড়ে তাদের জন্য । আজ তার বিভিন্ন কারন এখানে আলোচনা করব ।

বাংলাদেশে থাকতে ইঞ্জিনিয়ারের করনীয়:

  • প্রথমে আপনার মূল সার্টিফিকেট ইউজিসি থেকে অথবা ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার হিলে বাংলাদেশ কারিগরি শিক্ষা বোর্ডে সত্যায়িত করতে হবে ( নির্ধারিত ফি সহ ইউজিসি/বোর্ডে সার্টিফিকেট জমা দিতে হয়)।
  • সার্টিফিকেট শিক্ষা মন্ত্রনালয়ে সত্যায়িত করতে হবে ( নির্ধারিত ফি সহ সার্টিফিকেট দিতে হয়)
  • তারপর সার্টিফিকেটটি পররাষ্ট্র মন্ত্রনালয়ে সত্যায়িত করতে হবে ( সরকার নির্ধারিত ফি সহ সার্টিফিকেট জমা দিতে হয়)
  • সবশেষে আপনি যে দেশে যাবেন সেই দেশের এ্যাম্বাসি কর্তৃক সত্যায়িত করতে হবে ।

প্রতারনার হাত থেকে বাঁচতে আপনার করনীয়:

আমি অনেক দিন ওমানে চাকরি করেছি  ইঞ্জিনিয়ার হিসাবে। তাই আমি দেখেছি বাংলাদেশি ইঞ্জিনিয়ারদের করুন অবস্থা । কারন ওমানে ও দুবাইয়ে অনেক কেরেল্লা (ইন্ডিয়ান) ইঞ্জিনিয়ার আছে যে তারা খুব কম পরিশ্রমে উচ্চ বেতন পায় । তার কিছু কারন আমি তুলে ধরছি

  • একজন ইঞ্জিনিয়ারকে যখন ভিসা দেয়া হয় তার সাথে এগ্রিমেন্ট পেপার সহ থাকে।
  • এগ্রিমেন্ট পেপারে ইঞ্জিনিয়ার বা লেবার পদবী সহ বেতন ও কি কি সুযোগ সুবিধা পাবে এবং জব কত বছরের কন্ট্রাক্ট সেটি স্পষ্ট করে লিখা থাকে ।

দালাল বা বিদেশীরা বাংলাদেশিকে ঠিক এখানেই প্রতারিত করে। কারন কোন বাংলাদেশী ইঞ্জিনিয়ারের যখন কোন ভিসা দেশে পাঠানো হয় তখন তাদেরকে এগ্রিমেন্ট পেপার দেওয়া হয়না । এগ্রিমেন্ট পেপার না দেওয়ার কারন: ওমান বা দুবাইয়ে ৯০ % কোম্পানি (নামে মাত্র) ইঞ্জিনিয়ার বাংলাদেশ থেকে নেয় ভিসা বের করে বিক্রি/ব্যাবসা করার জন্য । কারন একজন ইঞ্জিনিয়ার কে তাদের চাহিদা হিসেবে শো করলে ১০-১৫ টি মেশন কার্পেন্টার বা লেবারের ভিসা পাওয়া যায় যা তারা বিক্রি করে পরে ইঞ্জিনিয়ারকে দেশে পাঠিয়ে দেয় । তখন ইঞ্জিনিয়াররা নিরুপায় হয়ে পড়ে কারন তার কাছে কোন এগ্রিমন্ট পেপার নেই । যদি এগ্রিমন্ট পেপার থাকত তাহলে পেপার দিয়ে মামলা করলে মালিক উল্লেখিত বছরের বেতন দিয়ে দেশে পাঠাতে হবে । আর ইন্ডিয়ান ইঞ্জিনিয়ার তুলনামূলক কম পরিশ্রমেও উচ্চ বেতন পায় কারন তারা যখন দেশের বাইরে আসে তখন ইন্ডিয়ান এ্যাম্বাসিতে কন্ট্রাক্ট ফরমে সাইন করে আসে। আর সেকারণেই যদি তারা দেশে ফেরত যায় তাহলে তাদের কে যত যত বছর এগ্রিমেন্ট পেপারে চুক্তি থাকবে সে পরিমান টাকা ফেরত দিতে হয় ।

আপনি এমন সুযোগ পেলে যা করবেন :

যখন আপনি ভিসা পাবেন তখন এগ্রিমেন্ট পেপার চাইবেন অথবা যখন কন্ট্রাক্ট হবে তখন বলবেন এগ্রিমেন্ট পেপারের কথা । আপনাকে দিয়ে যদি এমন ব্যাবসা করার চিন্তা ভাবনা দালালদের থাকে তাহলে দালালটি কেটে পড়বে । কত টাকা লাগবে বিদেশে যেতে : আপনাকে যখন প্রস্তাব দিবে তখন টাকা চাইতে পারে। কিন্তু একজন ইঞ্জিনিয়ার দেশের বাইরে গেলে ভিসা প্রসেসিং খরচ ফ্লাইট ভাড়া (সব খরচ ) কোম্পানি বহন করবে ।

অনুগ্রহ করে শেয়ার করে সকল বন্ধুদের জানিয়ে দিন। পরবর্তি আপডেট পেতে আমাদের ওয়েবসাইট নিয়মিত ভিজিট করুন। চাকরি ও ক্যারিয়ার বিষয়ক আপডেট পেতে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিনঃ fb.com/engrjobs.bd    

  

Leave you comments here

  
Similar Post for You

Hotjobsbd সম্পর্কিত চাকরির তথ্য পেতে নিচের পেজে লাইক দিন

বিভাগসমুহ



Copyright © 2012-2017, Hotjobs. Developed by YOUTHFIREIT.